Saturday December 05, 2020
intellect logo

Home Technocracy 3G: আরও নতুনের অপেক্ষায়

3G: আরও নতুনের অপেক্ষায়

আবীর হাসান
3G: আরও নতুনের অপেক্ষায়

২০০১ সালে জাপানে প্রথম চালু হয় 3G প্রযুক্তি। আমরা পেলাম এক যুগ পরে, টেলিটকের হাত ধরে। নাম থেকেই 3G-র চরিত্র জানা যায় আর সাম্প্রতিক কালের টিভি বিজ্ঞাপনগুলো 3G কে বোঝাচ্ছে বেশ ভাল ভাবেই। তারপরেও বলি, হ্যান্ডহেল্ড ডিভাইসে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা হচ্ছে 3G। বলা বাহুল্য যে 2G ধীরগতির শুধু নয়, অডিও নির্ভরও। এর ক্ষমতা বৃদ্ধির চেষ্টা চলেছে বহুদিন, কিন্তু একটা সীমায় গিয়ে তা আটকে যায়। যদিও বিনোদনের চাহিদাটাই এখন পর্যন্ত মুখ্য তবু 3G সার্বজনীন হলে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার বহুমাত্রিক হবে এমন একটি আশা আছে গবেষক এবং বাজার বিশ্লেষকদের, ফলে একে সর্বজন ব্যবহার উপযুক্ত করে তোলার চেষ্টা চলছে। 

বিনোদন দিয়ে প্রলোভন দেখানো হলেও 3G-র মূল ব্যবহারোপযোগিতা হল এর বাড়তি ব্যান্ডউইডথ যা ইন্টারনেটকে চলতি 2G মোবাইলফোনের ইন্টারনেট থেকে আরো অন্তত ২০গুন গতি প্রদান করে, যা ডেটা পরিবহন করে উচ্চগতিতে এবং ভিডিও কল ও গ্রুপ ভিডিও চ্যাটকে করে নিরবিচ্ছিন্ন। এ বিষয়গুলো এক সময় শুধুমাত্র পারসোনাল কম্পিউটারেই সম্ভব ছিল, এর পরে ল্যাপটপ ও নেটবুক কিছুটা সুবিধা দিলেও নতুন প্রজন্মের যে চলতে ফিরতে হাই স্পিড ইন্টারনেট ও মিডিয়া কানেক্টিভিটির চাহিদা ছিল তা পূরন করা সম্ভব হচ্ছিল না। 

গবেষকরা বিশেষ করে প্রযুক্তি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানগুলো মরিয়া হয়ে উঠেছিলো মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এই চাহিদা পূরণের জন্য। কিন্তু দেখা গেল 2G যে ধরনের ডিভাইসে কাজ করে তাতে 3G সুবিধা দেয়া সম্ভব না, কারন... 2G ডিভাইসগুলোতে হাইস্পিড মাল্টিমিডিয়া ইন্টারনেটের জন্য ব্যবহৃত সফটওয়্যার চালানোর সক্ষমতা নেই। 3G ডিভাইসের জন্য এই সফটওয়্যার পাওয়া গেল অচিরেই। আজকের অ্যানড্রয়েড হল সেই বিস্ময়। 

এর ধারাবাহিকতায় যোগ হয়েছে আরেকটি স্মার্ট ডিভাইস, ট্যাবলেট। সর্ব শেষ দুটি ডিভাইস বাজারে আসার অপেক্ষায় আছে, সেগুলো হল গিয়ার ও আই-গগলস। গিয়ার হাত ঘড়ির মত দেখতে হলেও আসলে ঘড়ি নয়, এটি ঘড়ির মত দেখতে একটি 3G ডিভাইস। আই-গগলস অন্যদিকে চশমার মত দেখতে আই-ফোনের একটি ভার্সন। এগুলো থেকে নির্দ্বিধায় বলা যায় 3G-র ধারনা এখন আস্তে আস্তে বাস্তবমুখী হচ্ছে। তারপরও একটা কিন্তু থেকেই যায়। 

তৃতীয় প্রজন্মের যোগাযোগের যন্ত্র হিসেবে বর্তমানে আমরা যা ব্যবহার করছি তা সাইবারনেট্ট্রিক্সের মূলমন্ত্র থেকে কিছুটা বিচ্যুত। নতুন যন্ত্র গুলো অসুবিধাজনক ভাবে বড় ও দুই হাতেরই ব্যবহার করতে হয়। এর পেছনে অবশ্য কারনগুলোও যুক্তিসংগত। কিন্তু আশার কথা এই যে, ২০১৪ সালের মে মাস নাগাদ বড় বড় স্মার্ট ফোন উৎপাদনকারী যেমন- অ্যাপল, মাইক্রোসফট, স্যামসাং সহ আরো অনেকে প্রতিদ্বন্ধিতার সাথেই 3G-র প্রথম ধাক্কা সামলে আরও উন্নত ও সুবিধাজনক আকারে নতুন ডিভাইস বাজারে ছাড়বে। আশা করা যাচ্ছে এতদিন যা বিনোদনের সঙ্গী ছিল তা এখন একটি অনিবার্য ব্যবসা ও কাজের অনুষঙ্গ হবে। 

পৃথিবীব্যাপী 3G তথ্যপ্রযুক্তিক্ষেত্রে বিপ্লব এনেছে গতি ও নিরবিচ্ছিন্নতা প্রদান করে। প্রযুক্তি নির্ভর ব্যবসার পরিকল্পনা এর সাহায্যে সফল করা যায়। এই প্রযুক্তি সেবা ভিত্তিক ব্যবসার ক্ষেত্রে নতুন ধারনা কে স্বাগত জানায়। যেমন, টেলিমেডিসিনের কথা ধরা যাক। একজন রোগীর এখন ডাক্তার দেখাতে আর চেম্বারে আসা লাগবে না বা একজন ডাক্তারকে আর রোগীকে দেখতে তার বাসায় যাওয়া লাগবে না, ভিডিও কনফারেন্সের সাহায্যে যেকোনো সময় যে কোন জায়গা থেকে একজন রোগী তার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে পারবে। এরসাথে একই ভাবে আছে দূর শিক্ষন ও এলাকা ভিত্তিক অন্যান্য সেবা যা প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে মানুষ কোন অতিরিক্ত সময় ব্যয় করা ছাড়া নিতে পারবে।

3G আমাদের কাছে বিনোদনের অনুষঙ্গ হিসেবে আসলেও গবেষকদের মতে এটি বাংলাদেশের ব্যবসা ও পেশাক্ষেত্রকে আরও গতি এনে দিতে পারে। কোন জরুরি ব্যবসার সভা, কোন ইন্টারভিউ এবং তাৎক্ষণিক সংবাদ প্রেরন এখন এর সাহায্যে দেশের বাইরে থেকেও নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে করা সম্ভব । এমনকি সাংবাদিকতা এর সাহায্যে নতুন মাত্রা পাবে।  প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার ব্যবস্থা এর সাহায্যে খুব সহজে উন্নত করা সম্ভব। আমরা হয়ত এটা উপলব্ধি করতে পারিনি যে প্রযুক্তি এখন এতটা এগিয়ে গেছে যে একজন সমুদ্র পার হয়ে অন্য কোন দেশে থেকেও বাংলাদেশে ব্যাবসা করতে পারবে, চাকরি করতে পারবে, পড়তেও পারবে শুধু একটি  স্মার্ট ফোন যদি তার হাতে থাকে।  

3G দরজা খুলে দিয়েছে সেসব উদ্যোগক্তাদের সামনে যারা প্রযুক্তিকে সাথী করে এগোতে আগ্রহী। আইটি সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা, সফটওয়্যার প্রকৌশলী অথবা যারা অ্যাপস বানান, তারা এর সাহায্যে নতুন করে একক ভাবেই ব্যবসা শুরু করতে পারেন বা আগের ব্যবসা বড় করতে পারেন। কারন এই 3G গতি প্রত্যেককে ভার্চুয়ালি সবসময় সক্রিয় রাখার ক্ষমতা রাখে এবং এর সঠিক প্রয়োগ আশানুরূপ লাভ এনে দিতে পারে। 

কিছু সীমাবদ্ধতা তো থাকবেই। তবুও প্রযুক্তির বিস্ময়কর গতির উদ্ভাবন 3G, আমাদের সামনে নতুন সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে। 3G নতুন উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে অন্যরকম মাত্রা এনে দিচ্ছে যা তাদের চিন্তা ও পরিকল্পনাকে  বাস্তবতা প্রদান করবে এবং আরও নতুন উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসতে আগ্রহী করবে।

 

 

The story was first published in INTELLECT Issue no.3, dated November 2013.

September 16, 2015
About Author

আবীর হাসান একজন প্রযুক্তি-বিষয়ক লেখক এবং কলামিস্ট, বর্তমানে রেডিও আমার এর বার্তা প্রধান হিসেবে কর্মরত।

Kazifarms Kitchen

Recent Posts


the2hourjob.com MARKS BANGLADESH'S ENTRY INTO THE 'GIG ECONOMY'

The2hourjob.com marks Bangladesh's entry into the 'Gig Economy' - a new milestone that Bangladesh has now achieved during the Digital Bangladesh era. 

The2hourjob.com is here to make us count on women and to make women look beautiful...

FUTURE SAMSUNG GALAXY PHONES COULD READ YOUR PALMS

Samsung files a patent for fetching patterns of password with palm verification.

NEW BARBIE DONS A HIJAB!

The world’s favourite beauty queen has been spotted in a hijab for the first time ever in a tribute to the bold Ibtihaj Muhammad, the first American Olympian to compete...